‘ডাজ নট ম্যাটার’ মন্তব্যে ষড়যন্ত্র!

  • ২৩-Dec-২০১৯ ০৪:০৫ অপরাহ্ন
Ads

:: ড. কাজী এরতেজা হাসান ::

চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মে ছাত্রলীগের সুনাম বিনষ্টকারী ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী এবার ঐতিহ্যবাহী ডাকসুকেও কি প্রশ্নবিদ্ধ করতে চলেছেন? একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে বহাল থেকে ‘ভিপি নুরুল হক নুর আহত নাকি নিহত হয়েছেন, ডাজ নট ম্যাটার’ বলে তিনি যে মন্তব্য করেছেন তা কখনোই মেনে নেওয়া যায় না। স্বয়ং বঙ্গবন্ধুকন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগে-পরে বারবার বলেছেন, দেশে প্রচলিত আইন আছে, আইন কখনোই নিজ হাতে তুলে নেওয়া যাবে না। 

কিছু দিন আগে ছাত্রলীগের কর্মকা-ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে আবরার হত্যা হলে প্রধানমন্ত্রীসহ বাংলাদেশের জ্যেষ্ঠ রাজনীতিকরা বিস্মিত হয়েছিলেন। বাংলাদেশের মানুষ হয়েছিল হতবাক। স্বাধীনতার চেতনায় উদ্ভাসিত ছাত্রলীগ নেতারা এমন কা- ঘটাতে পারে এটা মেনে নেওয়া যায় না। পরে বাধ্য হয়েই বিশ্বাস করতে হয়েছিল। যদিও আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, ছাত্রলীগে কিছু নেতাকর্মী টাকার বিনিময়ে এমন সব নেতাকর্মীকে পোস্ট পদবি দিয়ে ছাত্রলীগকে নষ্ট করার ষড়যন্ত্রে মেতে আছেন। কয়েক মাস আগে রাব্বানী কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ হারিয়ে নুরুর ওপর হামলায় উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে সারা দেশের শিক্ষাঙ্গনকে অস্থির করে তোলার পাঁয়তারা করছেন না তো? ষড়যন্ত্রের কেমন যেন এক গন্ধ আছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিকবোদ্ধারা।

দেশীয় অস্ত্র ও বহিরাগতদের নিয়ে ডাকসু ভিপি নুরুল হক মারামারিতে জড়িয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন জিএস গোলাম রাব্বানী। ভিপি নুর নিজের দুর্নীতি ঢাকতে বহিরাগতদের নিয়ে ডাকসুকে ব্যবহার করে অরাজকতা করছেন বলেও অভিযোগ তুলছেন তিনি। এছাড়া ভিপি নুর পদত্যাগের মাধ্যমে ডাকসু শান্ত হবে বলেও জানান তিনি। ভিপি নুরু যে এসব করেননি তা আমরা বলছি না। আবার করেছেন, তাও বলছি না। এটা তদন্ত সাপেক্ষ ব্যাপার। দেশে আইন আছে, আগে না থাকলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের হাল ধরে আইনের শাসন বাস্তবায়ন করেছেন। সেক্ষেত্রে আইনের আশ্রয় নিয়ে সব সমস্যার সহজ সমাধান করা সম্ভব। কিন্তু তা না করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নামে গত রোববার দুপুর ১টার দিকে ডাকসু ভবনে গিয়ে ভিপির কক্ষ এবং ডাকসু ভবনে ভাঙচুর চালানো হয়। হামলা-ভাঙচুরে ভিপি নুরসহ আটজন আহত হন। পরে নুরদের ওপর হামলার বিষয়ে রাব্বানী বলেন, ‘সকাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বহিরাগতদের নিয়ে ডাকসুতে জড়ো হন নুর। এ সময় তাদের হাতে দেশীয় অস্ত্র, রড ও লাঠি ছিল। পরে ডাকসু ভবনের উপর থেকে নুরের নেতৃত্বে ইট-পাটকেল মারা হয়।’ 

দুঃখজনক বিষয় হল, ডাকসুর একজন নির্বাচিত নেতা হিসেবে সব সমস্যা স্মার্টলি হ্যান্ডেলের ক্ষমতা থাকা প্রয়োজন ছিল রাব্বানীর। কিন্তু তিনি সেটা না করে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন। এসময় ‘কারা এই মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ সেই প্রশ্নও তোলেননি। শুধু নুরুকে মেরেছে তাও না, ডাকসুতে ঢুকে ডাকসুর সম্পদ নষ্ট করারও দুঃসাহস যারা দেখিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে ডাকসু কী ব্যবস্থা নেবে তাও বলেননি তিনি।

বিশিষ্টজনদের ধারণা কি তবে ঠিক হতে চলেছে? উড়ো কথা বলে আমলে নেওয়া হয়নি এতদিন। তবে সেই উড়ো কথাই কি তবে সত্য? ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে পদ হারিয়ে নাকি নানা অপকর্ম ও ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন এই রাব্বানী। ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় বিভিন্ন শাখায় নানা পদে নিজের লোকজন রেখে গেছেন তিনি। তাদেরকে দিয়েই নাকি চালিয়ে যাচ্ছেন এসব অপকর্ম। 

যাকে নিয়ে রাব্বানী বললো ‘ডাজ নট ম্যাটার’, সেই আহত নুরুসহ আহতদের দেখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে গতকালই হাসপাতালে গিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম। তারা আহতদের চিকিৎসার খোঁজখবর নিয়েছেন। সুচিকিৎসার জন্য যাবতীয় পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছেন। গতকাল প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে স্পষ্টভাবে বলে দিয়েছেন, ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত, তারা যদি দলীয় পরিচয়ের কেউও হয় তবে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। সাংগাঠনিক এবং প্রশাসনিকভাবেও ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পরিষ্কার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। 

‘মুক্তিযুদ্ধ’ শব্দটি ঠুনকো নয়, গর্বের। এই গর্বের বিষয়টিতে খর্ব করার জন্য নানা সময়ে দুষ্কৃতকারীরা অপব্যবহার করেছেন। এসব দুষ্কৃতকারীরা ষড়যন্ত্র করে কালিমা লেপনের চেষ্টা করেছেন স্বাধীনতার চেতনায় উদ্ভাসিত ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের গায়ে। এদেরকে থামাতে হবে। শুধু পদ থেকে নয়, ছাত্রলীগ থেকেও এদের অপসারণ জরুরি। 

Ads
Ads