রাত পোহালেই জবির প্রথম সমাবর্তন

  • ১০-জানুয়ারী-২০২০ ০২:২৫ অপরাহ্ন
Ads

:: জবি প্রতিনিধি ::

রাত পোহালেই ১১ জানুয়ারী, প্রতিষ্ঠার ১৪ বছর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ ধুপখোলাতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বহু প্রতিক্ষিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন। প্রায় ১৯ হাজার গ্রাজুয়েটদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বৃহৎ এই সমাবর্তন। সমাবর্তন উপলখ্যে নানান সাজে সেজেছে বিশ্ববিদ্যালয় সহ আশপাশের এলাকা। পুরো পুরান ঢাকায় যেন উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করবেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব আবদুল হামিদ। এতে বিশেষ হিসেবে উপস্থিত থাকবেন  শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মণি। এবং সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ড. অরুণ কুমার বসাক। 

এদিকে সমাবর্তন ঘিরে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা। চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে সমাবর্তন স্থল ধুপখোলা মাঠ সহ আশপাশের এলাকা গুলোতে। ইতিমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকেও বিএনসিসি, রোভার স্কাউটদের প্রস্তুত করা হয়েছে। ১৯ হাজার শিক্ষার্থীর পদচারনায় ১১ জানুয়ারী পুরান ঢাকায় থাকবে বাড়তি লোকারণ্য। বাড়তি চাপ সামলাতে পুরান ঢাকা এলাকায় ভারি যান চলাচল বন্ধ করতে পারে ট্রফিক পুলিশ। এদিকে সমাবর্তন স্থলে শিক্ষার্থীদের প্রবেশের চাপ সামলাতে সকাল ৮টা থেকেই ভেন্যুতে প্রবেশ করতে পারবে আগত গ্র্যাজুয়েটরা। বেলা ১১টা ৫৫মিনিটে রাষ্ট্রপতির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান শুরু হবে।

সমাবর্তনে প্রবেশের জন্য আগত গ্রাজুয়েটদের মেনে চলতে হবে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম কানুন। সমাবর্তন স্থলে আগতদের আমন্ত্রণপত্রটি সঙ্গে আনতে হবে। প্রবেশের সময় জাতীয় পরিচয়পত্র বা পাসপোর্ট বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদত্ত পরিচয়পত্র আনতে হবে। মোবাইল ফোন, হ্যান্ডব্যাগ, ব্রিফকেস, ক্যামেরা, ছাতা ও পানির বোতল বা অন্য কোন ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস সঙ্গে নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করা যাবে না। গ্র্যাজুয়েট ও আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ ১নং গেইট দিয়ে সমাবর্তন স্থলে প্রবেশ করবেন।

গ্রাজুয়েটদের জন্য সকাল ৮টায় গেইট খোলা হবে এবং তাঁরা সকাল ১০.৩০ টার মধ্যে অবশ্যই সমাবর্তনস্থলে আসন গ্রহণ করবেন। এর পরে কোন গ্রাজুয়েট সমাবর্তন স্থলে প্রবেশ করতে পারবেন না। মাননীয় চ্যালেন্সর শোভাযাত্রা প্যান্ডেলে প্রবেশের সময় থেকে মাননীয় চ্যান্সেলর মঞ্চে আসন গ্রহণ না করা পর্যন্ত অতিথিবৃন্দসহ সমাবর্তনে অংশগ্রহণকারী সকল অনুগ্রহপূর্বক নিজ নিজ আসনের সামনে দাঁড়িয়ে থাকবেন। মাননীয় চ্যান্সেলর কর্তৃক সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণার পর মাননীয় চ্যান্সেলর শোভাযাত্রা সমাবর্তনস্থল ত্যাগ না করা পর্যন্ত সবাই অনুগ্রহপূর্বক নিজ নিজ আসনে অবস্থান করবেন।

উল্লেখ্য৷ সমাবর্তনের দিন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে কতৃপক্ষ। যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের সাথে জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী বাপ্পা মজুমদার মঞ্চ মাতাবেন।

Ads
Ads