বাদীকে সাথে নিয়ে বইগুলো নষ্ট করে প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে: হাইকোর্ট

  • ৫-ফেব্রুয়ারী-২০২০ ১২:২৪ অপরাহ্ন
Ads

:: আদালত প্রতিবেদক ::

বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস বইয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অবমাননা করার বিষয়ে দায়েরকৃত রিটের শুনানিতে মহামান্য হাইকোর্ট বাংলাদেশ ব্যাংককে একটি নির্দেশনা প্রদান করেছেন। বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) মামলার ঐতিহাসিক রায়ের শুনানির দিন বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চের দেয়া নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস বইটিকে যেভাবে বাজারজাত করা হয়েছিল, সেগুলো সংগ্রহ করে এই মামলার রিটকারী ভোরের পাতা ও দ্য পিপলস টাইমস সম্পাদক, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিল্প-বাণিজ্য ও ধর্মবিষয়ক উপ-কমিটির সাবেক সদস্য এবং এফবিসিসিআই পরিচালক ড. কাজী এরতেজা হাসানকে সাথে নিয়ে বইগুলো নষ্ট করে আদালতকে লিখিত আকারে জানাতে হবে। আগামী মাসের ১ মার্চে যেসব বইয়ে বঙ্গবন্ধুর ছবি নাই, সেগুলো নষ্ট করে আদালতকে লিখিত আকারে প্রতিবেদন জমা দেয়ার সময়সীমাও বেঁধে দেয়া হয়েছে আদালতের পক্ষ থেকে।  

বুধবার আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি সভাপতি এএম আমিন উদ্দিন, ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, অ্যাডভোকেট সাইফুদ্দিন খোকন, মো. মতিয়ার রহমান এবং শাহাজাহান লিংকন। 

অন্যদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এবং কিউসি আজমালুল হক। 

তথ্য গোপন করে ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস’ গ্রন্থে ইতিহাস বিকৃতি বিশেষ করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অবমনানা করার অভিযোগ এনে গত বছরের ২ অক্টোবর হাইকোর্টে রিট দায়ের করেছিলেন ভোরের পাতা ও দ্য পিপলস টাইমস সম্পাদক, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিল্প-বাণিজ্য ও ধর্মবিষয়ক উপকমিটির সদস্য এবং এফবিসিসিআই পরিচালক ড. কাজী এরতেজা হাসান।

এদিকে, পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা যারা এখনো স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে হত্যা করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আদর্শিক এ লড়াই আমৃত্যু চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ড. কাজী এরতেজা হাসান। ঘটনা প্রবাহের এই সময়ে হাইকোর্ট বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করতে পেরে বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর ফজলে কবির থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ভর্ৎসনা থেকে শুরু করে বইটি বাজারজাত করার বিষয়েও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল। এমনকি রিটকারী ড. কাজী এরতেজা হাসানকে স্বশরীরে হাইকোর্টে গিয়ে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করার জন্যও ডাকা হয়েছিল। সেখানে তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অবমাননা করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে চূড়ান্তভাবে আদালতের মাধ্যমেই জয়ী হবেন বলে বিশ্বাস রেখে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে, মামলার রিটকারী ড, কাজী এরতেজা হাসান বুধবার বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অবমাননা করা বইটিকে সমূলে নষ্ঠ করার যে নির্দেশনা দিয়েছেন মহামান্য আদালত, তাতে করে আমাদের নৈতিক বিজয় হয়ছে। বঙ্গবন্ধুর প্রতি সম্মান জানাতে আমি আদালতের রায় মেনে এসব বই নষ্ট করার কাজে থাকবো। কেননা ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে এটা একটা মাইলফলক হয়ে থাকবে, যে ইতিহাস বিকৃতকারীরা কোনো ছাড় পায়নি। 

এদিকে, দীর্ঘ এক বছরেও বেশি সময় ধরে শুধু হাইকোর্টে এই সংক্রান্ত রিট আবেদন করার কারণে নানা মহলের হুমকিও পেয়েছেন ড. কাজী এরতেজা হাসান। তবুও একটি বারের জন্য সমঝোতা বা আপোস করার মানসিকতাও দেখাননি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে বুকে ধারণ করার এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একজন কর্মী হিসাবে। তিনি বারবারই উচ্চারণ করেছেন, যত বাধাই আসুক না কেন; আমি আমার এ লড়াই চালিয়ে যাবোই, ইনশাল্লাহ। কারণ শেখ মুজিবরের আদর্শকে হত্যা করতে এখনো বাংলাদেশে পাকিস্তানি প্রেতাত্নারা সক্রিয়। এই অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে আমি অবশ্যই লড়াই চালিয়ে যাবো।

Ads
Ads