আন্দোলন অব্যাহত, বিশ্ববিদ্যালয় সচলের দাবিতে মানববন্ধন

  • ১৭-ফেব্রুয়ারী-২০২০ ০৮:১৩ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেমুরবিপ্রবি) ইতিহাস বিভাগের আন্দোলনের কারণে অচল হওয়া একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম অবিলম্বে সচল করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থীরা। আজ সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় জয় বাংলা চত্বরে ঘণ্টাব্যাপী এই মানববন্ধন চলে। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় সচল করার দাবি জানান।

মানববন্ধনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, ইতিহাস বিভাগের আন্দোলনের পক্ষে তাদের সমর্থন থাকলেও এভাবে ক্যাম্পাসে অচলাবস্থা সৃষ্টি কাম্য না। এমন অচল বিরাজমান থাকায় অনেক শিক্ষার্থী ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। শিক্ষার্থীর আরো বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ ক্লাস-পরীক্ষা না হওয়ায় তারা সেশনজটে পড়ার আশঙ্কায় ভুগছে। 

অন্যদিকে ইতিহাস বিভাগের অনুমোদনের দাবিতে টানা ১২ দিনের মতো অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছেন ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীরা। বেলা ১১টায় বিভাগ অনুমোদনের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিভাগটির শিক্ষার্থীরা। বিক্ষোভ মিছিলটি প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

আন্দোলনের শুরুতে একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনের তালা ঝুলিয়ে দেয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। ফলে টানা সপ্তম দিনের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ। 

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, আন্দোলনের কারণে টানা সাত দিন যাবৎ অগ্রণী ব্যাংক বিশ্ববিদ্যালয় শাখার কার্যক্রম বন্ধ আছে। শাখা ব্যবস্থাপক মো:শিমুল মোল্লা জানান"আন্দোলনের কারনে ব্যাংকের আর্থিক লেনদেন সম্পূর্ণ বন্ধ।এতে আর্থিক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সরকারী এই প্রতিষ্ঠানটি।

অচলঅবস্থা সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ইতিহাস বিভাগের অনুমোদন প্রাপ্তির জন্য আন্তরিক। আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি ইউজিসির অনুষ্ঠিত সভায় বিভাগ অনুমোদনের বিষয়টি উত্থাপন করা হবে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) কর্তৃক আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে ইতিহাস বিভাগে শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ও ইতিহাস বিভাগের স্থায়ী অনুমোদনের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে বিভাগটির শিক্ষার্থীর।

Ads
Ads