খাগড়াছড়িতে নিহত বিজিবি সৈনিক শাওনকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

  • ৪-মার্চ-২০২০ ০৪:১৬ অপরাহ্ন
Ads

:: বরগুনা প্রতিনিধি ::

খাগড়াছড়িতে গ্রামবাসীর সাথে সংঘর্ষে নিহত বিজিবি সৈনিক মো. শাওন (৩০)এর গ্রামের বাড়ি বরগুনার বেতাগীতে চলছে এখন শোকের মাতম। স্বজনদের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে এলাকার পরিবেশ। নিহতের খবর গ্রামের বাড়ি এসে পৌছালে পরিবার ও এলাকাবাসীর মাঝে  নেমে আসে শোকের ছায়া। স্বজন হারানোর আহজারীতে স্তব্দ হয়ে যায় গোটা গ্রাম । 

নিহত মো. শাওন অবসরপ্রাপ্ত সৈনিক নুরুল ইসলাম ও নাসরিন বেগম দম্পতির একমাত্র ছেলে। দুই ভাই বোনের মধ্যে সে ছোট। দুইবছর আগে পারিবারিক ভাবে তাদের  বিয়ে হয় বাকেরগঞ্জের নিয়ামতি ইউনিয়নের মারিয়া আক্তারের সাথে। ক’দিন পরেই ছুটি নিয়ে  বাড়ি ফেরার কথা ছিল, কিন্ত ভাগ্যের নির্মম পরিহাস আবশেষে লাশ হয়ে ফিরতে হলো শাওনকে। 

বুধবার (৪ মার্চ)  সকাল সাড়ে ছয়টায় খাগড়াছড়ি থেকে শাওনের লাশ নিজ গ্রামের বাড়িতে পৌঁছে। লাশ পৌঁছার পর শেষ বারেরমত তাকে একনজর দেখতে আসা শত শত মানুষ কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। সরে জমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাকরুদ্ধ বাবা নুরুল ইসলামকে উপস্থিত লোকজন শান্তনা দিচ্ছেন। প্রিয় সন্তানকে হারিয়ে মা নাসরিন বেগম পাগল প্রায়। সে বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন মাতম করতে করতে। স্ত্রী মারিয়া আক্তারের বিলাপে পাড়া-প্রতিবেশির চেখেও জল বইছে। তাকে হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে পরিবারটি।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ৮ বছর আগে ২০-ব্যাটালিয়ন বিজিবিতে সৈনিক পদে যোগ দেয় শাওন। পরে ৪০ ব্যাটালিয়নে বদলী হয়ে খাগড়াছড়িতে যোগ দেয়। গত মঙ্গলবার খাগড়াছড়িতে গাছ কাটা নিয়ে গ্রামবাসীর সাথে সংঘর্ষে শাওন নিহত হয়। 

মঙ্গলবার (৩ মার্চ)  খাগড়াছড়িতে প্রথম জানাজা নামাজ শেষে বুধবার ভোর সাড়ে ছয়টায় শাওনের লাশ গ্রামের বাড়িতে আনা হয়। পরে খুলনা থেকে আগত ২১ ব্যাটালিয়ন বিজিবি সদস্যদের উপস্থিতিতে সকাল সাড়ে এগারোটায় দ্বিতীয় জানাজা নামাজ শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

মরহুমের জানাজা নামাজে বেতাগী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান ফোরকান, পৌর মেয়র এবিএম গোলমাল কবির ও ভাইস চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম পিন্টুসহ সর্বস্তরে মানুষ অংশগ্রহণ করেন। 

Ads
Ads