তারেক রহমানের পিএস অপু পাঁচদিনের রিমান্ডে

  • ১২-জানুয়ারী-২০১৯ ১২:৫৯
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

নির্বাচনের আগে ৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা ৩৮ হাজার ৬৫০ টাকা রাজধানীর মতিঝিলের একটি থেকে গ্রেফতার করা মিয়া নুর উদ্দিন আহমেদ অপুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত। নির্বাচনে অপু শরীয়তপুর-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন। তিনি লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের এপিএস হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার অপুকে চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির ইন্সপেক্টর আশরাফুল ইসলাম জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিন রিমান্ড আবেদন জানান। শুনানি শেষে বিচারক সারাফুজ্জামান আনছারী ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষে সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর আজাদ রহমান বলেন, উদ্ধার করা টাকা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে প্রভাবিত করার কাজে ব্যবহার করার পরিকল্পনা ছিল। এ বিষয়ে কারা কারা জড়িত, সেটিই বের করা দরকার।

এর আগে গত ২৬ ডিসেম্বর মামলার অপর আসামি মতিঝিলের ইউনাইটেড করপোরেশনের এমডি এ এম আলী হায়দার ওরফে নাফিজ, অফিস ব্যবস্থাপক আলমগীর হোসেন এবং গুলশানের আমেনা এন্টারপ্রাইজের জিএম জয়নাল আবেদীনকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে পাঠানো হয়। জয়নাল আবেদীন এক সময় বিএনপি শাসনামলে প্রভাবশালী হয়ে উঠা হাওয়া ভবনের কর্মচারী ছিলেন। গত ২৪ ডিসেম্বর মতিঝিল থানাধীন সিটি সেন্টরের ইউনাইটেড এন্টারপ্রাইজ অ্যান্ড ইউনাইটেড করপোরেশনে র‌্যারে অভিযানে জব্দ হয় তিন কোটি ১০ লাখ ৭৩ হাজার টাকা। আটক জন প্রতিষ্ঠানটির এমডি আসামি আলী হয়দার। তার দেওয়া তথ্যে পল্টন থানাধী হাউজ বিল্ডিং রোডের বায়তুল খায়ের টাওয়ারের সিটি মানিটারী এক্সচেঞ্জ থেরক আরও পাঁচ কোটি টাকা জব্দ হয়।

বিএনপি-জামায়াত সরকারের সময় হাওয়া ভবনের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের একজন ছিলেন মিয়া নুরুদ্দীন অপু। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তিনি মালয়েশিয়া চলে যান। এরপর দেশে ফিরে বেশ কিছু দিন জেল খাটেন।

ভোটের প্রচার চলাকালে গত ২৪ ডিসেম্বর শরীয়তপুরের গোসাইরহাটে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের হামলায় আহত হন অপু। সেদিনই তাকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। এই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থাতেই ৪ জানুয়ারি তাকে গ্রেপ্তার দেখায় র‌্যাব-১।

Ads
Ads