ইউসুফকে বাঁচাতে কাজ করছে এক ঝাঁক তরুণ, প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ৩১-মার্চ-২০১৯ ১০:২৭ অপরাহ্ন
Ads

:: কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি ::

মো. ইউসুফ মিয়া (১৪) গাজীপুরের কালীগঞ্জ আর.আর.এন পাইলট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শেণিতে পড়ছে। বাবা মো. আব্দুল আলী ঢাকায় রিক্সা চালান। মা মরিয়ম বেগম যখন বুঝতে পারলেন ৪ সদস্যের সংসার স্বামীর একার রোজগারে চালানো সম্ভব নয়, তখন তিনিও স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানে নারী শ্রমিকের কাজ শুরু করেন। 

ছোট্ট ইউসুফ খুব বেশি ভাল-মন্দ বুঝতে না পারলেও সে যে দরিদ্র পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেছে এটা ভালভাবেই বুঝতে পারে। বছর খানেক আগে ইউসুফ মাঠে বন্ধুদের সাথে খেলতে গিয়ে পড়ে মেরুদন্ডে ব্যাথা পায়। অভাবের সংসার ব্যাথার কথা বাড়িতে বললে তার জন্য সবাই চিন্তা করবে বা তার চিকিৎসায় অর্থ ব্যয় হবে ভেবে বলা হয়নি। সর্বদা হাস্যোজ্জল ইউসুফের সেই ব্যাথা এখন জীবন-মরণের প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। সে এখন ব্যাথায় কাতরাচ্ছে। 

চিকিৎসকরা বলছেন তার মেরুদন্ডের হাড় বাকা হয়ে গেছে। তাদের ভাষায় এটাকে ‘কালিওসি’ রোগ বলে। তা থেকে উত্তোরণের জন্য অনেক অর্থ ব্যয় করতে হবে। কিন্তু ইউসুফের দরিদ্র পরিবারের পক্ষে এ চিকিৎসা ব্যয় চালানো সম্ভব নয়। এ কারণে মানুষ মানুষের জন্য শ্লোগানে স্থানীয় এক ঝাঁক তরুণ ইউসুফকে বাঁচাতে কাজ করছে। তারা রাস্তা-ঘাটে, স্কুল-কলেজে সাহায্যের জন্য হাত বাড়িয়েছেন। কিন্তু তারা মনে করছেন যে পরিমান অর্থের প্রয়োজন আর যা সংগ্রহ হচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। এ জন্য তারা ইউসুফকে বাঁচাতে দেশের মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন। পাশাপাশি বিত্তবান ও প্রবাসী ভাই-বোনদের কাছেও অনুরোধ করেছেন সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য। 

সাহায্য পাঠাতে পারেন ইউসুফের মা মরিয়মের নামে সিটি ব্যাংকের কালীগঞ্জের এজেন ব্যাংকিং শাখায় খোলা হিসাব নম্বরে (৭৭৭২১৮২৪৯২২১৯০০১) অথবা ব্যক্তিগত বিকাশ নম্বরে (০১৯৫২৭০৩৬৭৭)। 

ইউসুফের মা মরিয়ম বলেন, তার ছেলের মরুদন্ডের সমস্যা ছাড়া টাইফয়েড, বাতজ্বর ও শীরের একটি  ক্ষতের ইনফেকশন ধরা পরেছে। তার এ রোগের চিকিৎসায় যে পরিমান অর্থ দরকার তাদের তা নেই। তাছাড়া সম্পদ বলতেও কিছু নেই যা বিক্রি করে চিকিৎসা করাবে। থাকার মধ্যে আছে কালীগঞ্জ পৌর এলাকার ভাদার্ত্তী গ্রামে একটি ঘরের এক টুকরো জমি। এখন প্রধানমন্ত্রীসহ যদি সমাজের বিত্তবানরা আমার ছেলের সাহায্যে এগিয়ে আসলে তাকে বাঁচানো সম্ভব।

Ads
Ads